ব্লগ পোস্ট লেখার আগে এবং লেখার পর

ব্লগপোস্ট লেখার আগে ব্লগপোস্ট লেখার পর

ব্লগ পোস্ট– Blog post লেখার আগে এই লেখাটা অবশ্যই একবার পড়ুন। এই লেখা থেকে আপনি জানতে পারবেন  Blog post লেখার আগে ও পরে ঠিক কী কী করলে খুব দ্রুত Google Rank করা যায়।

প্রায়শই নতুনদেরকে দেখা যায় একটা ব্লগ বানিয়ে তারপর ব্লগ পোস্ট করতে শুরু করে দিয়েছে। কিন্তু বিষয়টা এত সহজ নয়।
আপনাকে যদি দীর্ঘদিন ধরে ব্লগিং করতে হয় তাহলে ব্লগিং এর নিয়মগুলো আপনাকে মেনে চলতে হবে।
প্রত্যেকটা জিনিসের মত ব্লগিংও নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম মেনে চলে,  তাই ব্লগ পোস্ট করার আগে এবং ব্লগ পোস্ট করার পরে বেশ কিছু নিয়ম আছে যেগুলো আপনাকে ফলো করতেই হবে। নতুবা আপনার ব্লগ কোনদিন ভাল কিছু করতে পারবে না।
চলুন এবার শুরু করা যাক:- 

ব্লগপোস্ট  লেখার আগে

 1. বিষয় নির্বাচন 

ব্লগ পোস্ট কোন বিষয়ের উপর লিখতে চাইছেন সেটা সবার আগে ঠিক করুন। বিষয় নির্বাচন হচ্ছে সব চাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ব্লগ পোস্ট লেখার ক্ষেত্রে।
আর অবশ্যই ১০০০+ শব্দের বেশি শব্দ ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। তবে অযথা আর্টিকেল বড় করবেন না।
2. যে বিষয়ের উপর লিখবেন তা বেশ ভাল ভাবে রিসার্চ করা    
 
 

যেকোনও ব্লগ পোস্ট লেখার আগে হাতে সময় নিয়ে keyword research করুন। সঠিক কিওয়ার্ড ছাড়া ব্লগ পোস্ট রেঙ্ক করে না। যেমন “প্রেমের গল্প” একটি কিওয়ার্ড, আবার ‘প্রেম’ শব্দটিও একটি কিওয়ার্ড । যে কিওয়ার্ডে কম্পিডিশন কম অথচ কস্ট পার ক্লিক (CPC) ভাল । এরকম কিওয়ার্ড নিয়ে কাজ করলে সহজেই গুগলে রেঙ্ক করাতে পারবেন। গুগলের প্রথম পেজের প্রথম দিকে থাকা মানেই দারুণ ভিজিটার পাবার সম্ভাবনা।


3. সঠিক পরিকল্পনা 

আপনার টপিক রেডি, কিওয়ার্ড রিসার্চ কমপ্লিট এর পরের কাজ  হচ্ছে সঠিক planing করা। অর্থাৎ ঠিক কিভাবে আপনার কিওয়ার্ডকে প্রয়োগ করবেন। 
মনে রাখবেন আপনার প্রতিটি আর্টিকেলের প্রতিটি কিওয়ার্ড হচ্ছে এক একটি ব্রহ্মাস্ত্র। তাই একটি অস্ত্রও যেন বিফল না যায় it’s your responsibility. সঠিক প্ল্যানিং হচ্ছে কিওয়ার্ড এর রোড ম্যাপ। কিওয়ার্ড এর জন্য ফ্রি তে Google keyword planner ব্যবহার করতে পারেন। কিংবা www.keyword.io ব্যবহার করতে পারেন।  

4. পরিস্কার ভাবে সবার বোঝার মতো লেখা 

এটা মাথায় রাখবেন, যা লিখছেন তা যেন পাঠক বুঝতে পারে। সহজ সরল ভাবে সুন্দর করে সাজিয়ে গুছিয়ে লিখুন। কোনও জায়গায় যেন পাঠক একমিনিটও বিরক্ত না হয়। পাঠক সন্তুষ্ট মানেই আপনি সফল। আপনার বিষয় কঠিন মানেই পাঠকের বিরক্তি। এবং ওয়েবসাইট থেকে বেরিয়ে যাওয়া। আর পাঠকের দ্রুত পালানো গুগলকে ইন্ডিকেট করে যে, এই আর্টিকেল ঠিকঠাক নেই। মানেই আপনার রেঙ্ক ডাউন হবে।


5. নিজের ছবি ব্যবহার করা 

আপনার আর্টিকেলের বিষয় যাই হোক সবসময়ই নিজের ছবি ব্যবহার করুন। নিজের মোবাইল বা ক্যামেরায় তোলা আর তা সম্ভব না হলে নিজে ছবি এডিট করুন। কিছুতেই ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করে ব্লগে ব্যবহার করবেন না। ব্লগে ভাল ছবি এডিট করার জন্য Canva ব্যবহার করুন।

ব্লগপোস্ট  লেখার পরে

এখানেই অনেকে ভুল করেন। দারুণ ভাবে লেখার পরেও সেই লেখাকে সবার সামনে তুলে ধরতে পারেন না। ব্লগ পোস্ট লেখা মানে ২৫% কাজ কম্পিট। বাকি ৭৫% কাজ হচ্ছে ব্লগ পোস্ট লেখার পর। যেটা বেশিরভাগ ব্লগার করেন না। ব্লগ পোস্ট লিখে পাব্লিশ করেই তারা ভাবেন কাজ কম্পিট। কিন্তু এখানেই সব শেষ হয়ে যায়। ব্লগ পোস্ট লেখার পর কী কী করতে হবে দেখুন।

লেখা প্রকাশ করার পর সবার প্রথমে Google webmaster tool and Bing webmaster tool এ প্রকাশিত লেখার লিংক সাবমিট করুন। যাতে বিশ্বের বড় দুটি সার্চ ইঞ্জিন আপনার লেখাটি সম্পর্কে দ্রুত জানতে পারে।
ভাল পরিমানে সোশাল মিডিয়ায় সেয়ার করুন। ফেসবুক, ফেসবুক গ্রুপ, ফেসবুক পেজ, ইনস্টাগ্রাম, লিংডিন, টুইটার এছাড়া কোয়ারা টাম্বলার, রিডিট, টেলিগ্রাম আরও যত সোশাল মিডিয়ায় ছড়াতে পারেন। এতে আপনার পোস্ট অনেকবেশি ইনডেক্স হবে। ভিজিটার পাবে। রেঙ্ক করবে দ্রুত।
এর পরের কাজ Backlink তৈরি করা। আপনি যে বিষয়ে লিখেছেন সেই বিষয়ে আরও যারা যারা ভাল লিখেছেন (ব্লগ/ওয়েবসাইট)  তাদের পোস্টে কমেন্ট করে আপনার লিংক দিন। এতে আপনার পোস্ট গুগলে দ্রুত রেঙ্ক করে উপরে উঠে আসবে।
★ আপনার আরও কোনও জিজ্ঞাসা থাকলে কমেন্ট করে জিজ্ঞেস করুন অবশ্যই উত্তর দেব।
★ কিভাবে নিজেই ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন সেটা দেখার জন্য আমাদের অন্যান্য পোস্টগুলো পড়ুন।

                  

এর পরেও যদি আপনার সমস্যা হয় তাহলে আমাদের ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট টিমকে দিয়েও আপনি ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারবেন। সেক্ষত্রে আপনার খরচ পড়বে ২৫০০-৩০০০ টাকা। তবে আমাদের আন্তরিক অনুরোধ ব্লগিয়ে ইচ্ছে না থাকলে এই দুনিয়ায় না আসাই ভাল। ব্লগিং করে তারা প্রচুর আয় করে যাদের ব্লগিং নেশা।

Leave a Comment